দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে রক্ষা পেল কলেজ পড়ুয়া তরুণী দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে রক্ষা পেল কলেজ পড়ুয়া তরুণী – Nagorik Vabna
  1. info.nagorikvabna@gmail.com : Rifan Ahmed : Rifan Ahmed
  2. mdmohaiminul77@gmail.com : Mohaiminul Islam : Mohaiminul Islam
রবিবার, ২০ জুন ২০২১, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
দেশব্যাপী প্রচার ও প্রসারের লক্ষে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা সিভি পাঠান info.nagorikvabna@gmail.com অথবা হটলাইন 09602111973-এ ফোন করুন।




দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে রক্ষা পেল কলেজ পড়ুয়া তরুণী

  • সর্বশেষ পরিমার্জন : বৃহস্পতিবার, ১০ জুন, ২০২১
  • ৭০ বার পড়া হয়েছে

মোঃ সিরাজুল ইসলাম গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি: প্রতারকের খপ্পরে পরে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় বাংলাদেশের সর্ববৃহত যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে কলেজ পরুয়া এক তরুণী (২০)।

মঙ্গলবার দিনগত রাতে যৌনপল্লীর প্রধানগেট থেকে স্হানীয়দের সহায়তায় ওই তরুণীকে উদ্ধার করে পুলিশ।এইচএসসি পাশ ওই তরুণীর বাড়ী পঞ্চগড় সদর উপজেলায়।

এ বিষয়ে ঘটনাস্থল থেকে মনির হোসেন (২৫) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে পঞ্চগড় সদর উপজেলার রাজমহল গ্রামের মো. জালালের ছেলে। এ সময় একই উপজেলার বাদু মৃধা গ্রামের মো. শাহউদ্দিন এর ছেলে মো. মাসুম (৩০) ও অজ্ঞাতনামা আরো একজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। তিনজনের বিরুদ্ধেই গোয়ালন্দ ঘাট থানায় মানব পাচার প্রতিরোধ আইনে মামলা দায়ের হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উদ্ধার হওয়া তরুনীর বাবা-মায়ের মধ্যে ডিভোর্স হওয়ায় বাবা নতুন করে বিয়ে করেন।সৎ মা তাকে প্রতিনিয়ত শারিরিক ও মানষিক অত্যাচার করতো এবং ঠিকমতো খাবার দিত না।

এ কষ্টের কথা সে মুঠোফোনে পূর্ব পরিচিত জনৈক মাসুমকে জানায়।মাসুম তাকে ভালো বেতনে গার্মেন্টেসে চাকরীর কথা বলে ঢাকায় আসতে বলে।

তরুনী সে কথা অনুযায়ী গত ৭ জুলাই সোমবার রাতে পঞ্চগড় থেকে বাসযোগে রওনা দিয়ে মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় চলে আসে। এরপর সে মাসুমের সাথে পুনরায় যোগাযোগ করলে মাসুম তাকে ঢাকা থেকে গোয়ালন্দে চলে আসার কথা বলে।

তরুনী এবারো সরল বিশ্বাসে গোয়ালন্দের উদ্দেশ্যে বাসে ওঠে।মঙ্গলবার বিকাল ৪ টার দিকে সে পদ্মা নদী পাড়ি দিয়ে দৌলতদিয়ার ৫ নং ফেরি ঘাটে এসে পৌছায়।

এখান থেকে মাসুম ও মনির তাকে সাথে করে নিয়ে বিভিন্ন স্হানে ঘুরায়।এরপর রাত ৮টার দিকে তাকে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর প্রধানগেটে নিয়ে বিক্রি করে যৌনপল্লীতে ঢোকানোর চেষ্টা করে। এসময় পল্লীর মেয়েদের চলাচল ও কথাবার্তায় সন্দেহ হলে সে চিৎকার শুরু করে।

তার চিৎকারে স্থানীয় কয়েকজন এগিয়ে এসে মনিরকে হাতেনাতে আটক করর।এ সময় মাসুম ও অজ্ঞাতনামা আরো একজন সেখান থেকে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ এসে ওই তরুণীকে উদ্ধার ও মনিরকে গ্রেফতার করে।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ্ আল তায়াবীর জানান, এ ঘটনায় ওই তরুণী নিজেই বাদী হয়ে মানবপাচার আইনে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।এ মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামী মনিরকে বুধবার আদালতের মাধ্যমে রাজবাড়ীর কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অপর দুই আসামীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।




সংবাদটি শেয়ার করুন

Comments are closed.

আরো সংবাদ পড়ুন




নাগরিক ভাবনা লাইব্রেরী

Sat Sun Mon Tue Wed Thu Fri
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930