1. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  2. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  3. news.rifan@gmail.com : admin :
  4. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
  5. srhafiz83@gmail.com : Hafizur Rahman : Hafizur Rahman
  6. elmaali61@gmail.com : Elma Ali : Elma Ali
বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৭:০৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গৌরীপুরে উদীচী কার্য়ালয়ে হামলা ও ভাংচুর ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের মুক্তির দাবীতে মানববন্ধন সাংবাদিককে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে জীবননগরে সাংবাদিকদের মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা মাগুরার শ্রীপুরে আ’লীগের দু-গ্রুপের সংঘর্ষে বাড়িঘর ভাঙচুর-লুটপাট, আহত ১০, আটক দুই ঝিনাইদহে কোটা বিরোধী আন্দোলনের শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগের হামলায় আহত ১০ আরইআরএমপি প্রকল্পের নারীদের সঞ্চিত অর্থের চেক ও সনদপত্র বিতরণ দেবহাটায় সুদমুক্ত ঋনের চেক, হুইল চেয়ার ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ বন্যার পানিতে ভেসে এলো সিকিমের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রীর লাশ চুয়েট বাসে দুর্বৃত্তদের হামলা
বিশেষ ঘোষণা :
সারাদেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা শীঘ্রই 09602111973 অথবা 01819-242905 নাম্বারে যোগাযোগ করুন।

এক পায়ে অনন্য ম্যাক্সওয়েল

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: বুধবার, ৮ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৯৬ বার পঠিত

ক্রিকেটে ব্যাটারদের জন্য বড় একটি ইস্যু ধরা হয় ‘ফুটওয়ার্ক’। ক্রিকেট বোদ্ধাদের মুখে বলের লাইন ও মুভমেন্ট বুঝে খেলার কথা সব সময়ই শোনা যায়। তবে সেসবকে যেন বুড়ো আঙুল দেখালেন অস্ট্রেলিয়ার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। মুম্বাইয়ের পিচে অস্ট্রেলিয়ান এই ব্যাটার রীতিমত এক পায়েই যেন বিশ্বকে নতুন কিছু দেখালেন।

২৯২ রান তাড়া করে ওয়াংখেড়েতে এর আগে কেউ জেতেনি। অস্ট্রেলিয়াও কখনও বিশ্বকাপের মতো বড় মঞ্চে এত রান তাড়া করেনি। দ্বিতীয় ইনিংসের আগে সম্ভাব্য সবকিছুই ইঙ্গিত দিচ্ছিল আরেক মিরাকলের। সেই পথে অনেকটা এগিয়েও ছিল আফগানরা। ৯১ রানে ৭ উইকেট পড়ার পর কে ভেবেছিল, এই ম্যাচ শেষ পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়াই জিতবে?

কিন্তু ম্যাক্সওয়েল সম্ভবত জানতেন। পায়ের পেশিতে টান পড়েছে। দৌড়ে রান নেওয়া হয়েছে রীতিমতো মুশকিল। পরের ব্যাটার অ্যাডাম জাম্পাও বেশ কয়েকবারই ড্রেসিংরুম ছেড়ে নিচে নেমে এসেছিলেন। তবে ম্যাক্সওয়েল হাল ছাড়েননি। খেলেছেন রেকর্ডবুক তোলপাড় করে দেওয়া এক ইনিংস।

একটা সময় পর্যন্ত অন্তত দৌড়েছিলেন এই বিধ্বংসী ব্যাটার। সেঞ্চুরির পর সেই দৌড়টাও বন্ধ হয়ে গেল তার। তার সামনে দুটো পথ খোলা ছিল— হয় বাউন্ডারি, নয়তো বল ডট দেওয়া। অপরপ্রান্তে থাকা প্যাট কামিন্সও ব্যাট হাতে খুব বেশি সাবলীল নন। ব্যাট হাতে যদিও এর আগে সামর্থ্য জানান দিয়েছিলেন তিনি, তবে এদিন সেই ঝুঁকিটা নিতে চাননি। শেষের ৮ ওভার তাই ম্যাক্সওয়েল খেললেন কেবল জায়গায় দাঁড়িয়েই।

ক্রিজে ম্যাক্সওয়েল ছিলেন ১৮১ মিনিট। খেলেছেন ১২৮ বল। এরমাঝেই করেছেন ২০১ রান। যেখানে ছিল ২১টি চার আর ১০টি ছক্কার বাউন্ডারি। মোট ১৪৪ রান এসেছে এই বাউন্ডারি থেকেই। এই ১৪৪ রানের জন্য খেলেছেন ৩১ বল। বাকি ৯৭ বলে এসেছে মাত্র ৫৭ রান।

সেঞ্চুরি করা পর্যন্ত ম্যাক্সওয়েল মোট ৫৮ রান নিয়েছিলেন বাউন্ডারি থেকে। এরপরের ১০০ রান করতে গিয়ে ৮৬ রান নিয়েছেন বাউন্ডারির সাহায্যে। ১১ চার আর ৭ ছয় থেকে এসেছে এই রান। প্রথম সেঞ্চুরি করতে ৭৬ বল লেগেছিল ম্যাক্সের। যেখানে শেষ ১০০ রান এসেছে মাত্র ৫২ বলে। তাতেও ৩৪ বলই খেলেছেন ডট।

১৯৮৬ সালে ভারতের মাদ্রাজেই এমন ইনজুরি নিয়ে মহাকাব্যিক ইনিংস খেলেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার ডিন জোন্স। চরম গরমে অসুস্থ হয়েও মাঠ ছাড়েননি। অনেকগুলো বছর পর আবার ভারতের মাটিতে ব্যাটিংয়ের নতুন মহাকাব্য লিখলেন আরেক অজি তারকা গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। এক পায়ে, ফুটওয়ার্ক ছাড়াও শুধুমাত্র দলের জন্য নিবেদিতপ্রাণ হয়েই দারুণ কিছু করা যায়, তারই যেন নমুনা দেখালেন এই অজি তারকা!

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...

আপনি কি লেখা পাঠাতে চান?

সারাদেশে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা শীঘ্রই 09602111973 অথবা 01819-242905 নাম্বারে যোগাযোগ করুন...

X