1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. hmgkrnoor@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  5. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  6. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  7. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
‘সমাজের জন্য এক মিনিট সময় ব্যয়’ প্রজেক্টের আওতায় গ্রুপ কাউন্সেলিং মাদারীপুরে জেলা ছাত্রদলের কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়ায় পরকীয়ার জেরে যবুককে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩ সাঁথিয়ায় ছাত্রলীগ নেতার কাঁটাতারের বেড়ায় অবরুদ্ধ তিনটি পরিবার, পুলিশ হস্তক্ষেপে অপসারণ কিশোরীর মৃত দেহ উদ্ধার মহেশপুর এ শিক্ষক, শিক্ষার্থী, পাঠক মতবিনিময় সভা ও কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত যশোরের মণিরামপুরে বিপুল পরিমান জাল ব্যান্ডরোলসহ তিনজন গ্রেপ্তার মহিমাগঞ্জ বসত বাড়ির জায়গা নিয়ে পারিবারিক দ্বন্দ্ব মারপিটে যখম ও আহত ২ আশাশুনির বিছট স্কুলের সামনে ফাটল সোনাগাজীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সন্তান কমান্ডের সাথে  উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী লিপটন’র মতবিনিময় অনুষ্টিত  




সারা বছরের খাদ্যের জোগান নিয়ে দিশেহারা কৃষক,ব্লাস্ট রোগে নষ্ট আগাম জাতের ব্রি-ধান ২৮

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: সোমবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৩
  • ১৪৩ বার পঠিত

সাইফুল্লাহ সাইফ : কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ব্লাস্ট রোগে নষ্ট হয়েছে আগাম জাতের ব্রি-ধান ২৮। সারাবছরের খাদ্যের জোগান নিয়ে দিশেহারা কৃষক। ব্রি-ধান ২৮ জাতের ধানে এর প্রকোপ বেশি। তারা রোগের প্রভাবে ধান চিটা হওয়ায় আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন ।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, এ বছর উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের জোয়ানশাহীসহ বেশ কয়েকটি হাওরে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ৭ হাজার ৬৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে ব্রি-ধান ২৮ আবাদ হয়েছে। ধান নষ্ট হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা নিয়ে সংশয়ে আছে উপজেলা কৃষি বিভাগ। উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের মৌটুপী, সাদেকপুর, রসুলপুর, মেন্দিপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, চলতি মৌসুমে হাওরের বিলে উচ্চ ফলনশীল জাতের বোরো ধান চাষ করা হয়েছে। কম সময়ে ফলন, চাল সরু এবং খেতে সুস্বাদু হওয়ায় হাইব্রিড জাতের পাশাপাশি উফসি-২৮ জাতের বোরো ধান চাষ করেন কৃষকেরা। কিন্তু উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের জমিতে (ব্রি-ধান ২৮) ব্লাস্ট রোগ দেখা দেওয়ায় ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ধানের শীষ আসার সঙ্গে সঙ্গে পুড়ে চিটা হয়ে গেছে। সেইসঙ্গে ইঁদুর গাছের গোড়া কেটে দেওয়ায় নষ্ট হচ্ছে ধান। এতে ক্ষতির মুখে পড়েছেন জেলার কৃষকেরা। ধার-দেনা করে বোরো ধানের আবাদ করেছেন তারা। ধান নষ্ট হওয়ায় দেনা শোধ করবেন কীভাবে, সেই চিন্তায় দিন কাটছে তাদের। ধান নষ্ট হওয়ায় সারাবছর খাদ্যের জোগান নিয়ে দিশেহারা ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকেরা।

জানা যায়, এ বছর তিনি ৮ বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছেন। এর মধ্যে হাইব্রিডের পাশাপাশি উফসি-২৮ জাতের ধান রোপণ করেন। কিন্তু এসব ধান গাছে ব্লাস্ট রোগ হওয়ায় ধান চিটা হয়ে গেছে। সেইসঙ্গে ভালো জমিতে ইঁদুর গোড়া কেটে দেওয়ায় ধান নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে তিনি আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক বলেন, ‘অন্যের জমি বর্গা নিয়ে এ বছর ৩০ বিঘা জমিতে বোরো-২৮ জাতের ধান রোপণ করেছি। ধানের শীষ আসার সঙ্গে সঙ্গে তা পুড়ে চিটা হয়ে গেছে। এ বছর একটা ধানও ঘরে তুলতে পারবো না। ছেলে-মেয়ে নিয়ে সারাবছর কী খেয়ে বাঁচবো সেই চিন্তায় আছি।’
রসুলপুর গ্রামের কৃষক সাইজুদ্দিন বলেন, ‘এ বছর ৫ বিঘা জমিতে ব্রি-ধান ২৮ আবাদ করেছি। এসব জমিতে ধান আবাদ করতে খরচ হয়েছে ৩৫-৪০ হাজার টাকা। এখন জমিতে যে পরিমাণ ধান পাওয়া যাবে, তাতে খরচের টাকাও উঠবে না বলে হয়।’

ভৈরব উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আকলিমা বেগম জানান, ব্রি-ধান ২৮ জাতে ব্লাস্ট রোগের আক্রমণ বেশি হয়। ফলে এ ধান চাষ করে কৃষকরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জমি পরিদর্শন করে সহযোগিতা ও বিভিন্ন পরার্মশ দেওয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হবে।

কৃষকরা আরো বলেন, ‘২০ বিঘা জমিতে এ বছর বোরো ধান আবাদ করেছি। তার মধ্য ১০ বিঘা জমিতে তাড়াতাড়ি পানি চলে আসায় ব্রি-ধান ২৮ আবাদ করেছি। কয়েক দিন আগে হঠাৎ রাতে ঝড়-বৃষ্টি হয়েছিল। তারপর থেকেই জমিতে চিটা পড়তে শুরু করেছে। তারপর পুরো জমি সাদা হয়ে গেছে। এখন যে টাকা খরচ করে কাটবো; সেই টাকার ধান পাবো না।’



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...