1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. hmgkrnoor@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  5. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  6. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  7. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৯:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
‘সমাজের জন্য এক মিনিট সময় ব্যয়’ প্রজেক্টের আওতায় গ্রুপ কাউন্সেলিং মাদারীপুরে জেলা ছাত্রদলের কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়ায় পরকীয়ার জেরে যবুককে পিটিয়ে হত্যা, আটক ৩ সাঁথিয়ায় ছাত্রলীগ নেতার কাঁটাতারের বেড়ায় অবরুদ্ধ তিনটি পরিবার, পুলিশ হস্তক্ষেপে অপসারণ কিশোরীর মৃত দেহ উদ্ধার মহেশপুর এ শিক্ষক, শিক্ষার্থী, পাঠক মতবিনিময় সভা ও কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত যশোরের মণিরামপুরে বিপুল পরিমান জাল ব্যান্ডরোলসহ তিনজন গ্রেপ্তার মহিমাগঞ্জ বসত বাড়ির জায়গা নিয়ে পারিবারিক দ্বন্দ্ব মারপিটে যখম ও আহত ২ আশাশুনির বিছট স্কুলের সামনে ফাটল সোনাগাজীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সন্তান কমান্ডের সাথে  উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী লিপটন’র মতবিনিময় অনুষ্টিত  




যে কারণে ভোগ ম্যাগাজিনের কভারে ১০৬ বছরের বৃদ্ধা

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: শনিবার, ১ এপ্রিল, ২০২৩
  • ১৩৪ বার পঠিত

বিশ্বের জনপ্রিয় ম্যাগাজিন ভোগ ফিলিপাইন তাদের এপ্রিল ২০২৩ সালের সংখ্যা প্রকাশ করেছে। ম্যাগাজিনটির এবারের সংস্করণের কভার পেজে জায়গা করে নিয়েছেন আপো হুয়াং-ওড নামের ১০৬ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা।

মূলত শরীরে ট্যাটু আঁকার প্রাচীন পন্থাটি ধরে রাখার কারণে ভোগ ফিলিপাইনের কভারে অপোর ছবি দেওয়া হয়েছে। ম্যাগাজিনটির ইতিহাসে এর আগে এত বয়সী কেউ কভার পেজে জায়গা করে নিতে পারেননি।

অপো হুয়াং-ওড মারিয়া ওগে নামেও পরিচিত। তিনি কৈশোর বেলা থেকেই শরীরে হাত দিয়ে ট্যাটু আঁকার কাজটি করছেন। এ বিষয়টি নিজের বাবার কাছ থেকে শিখেছিলেন তিনি।

অপো হুয়াং বাস করেন রাজধানী ম্যানিলা থেকে ১৫ ঘণ্টা দূরের পাহাড়ি এলাকা কালিঙ্গা প্রদেশের বুসকালানে। তাকে ফিলিপাইনের সবচেয়ে বয়স্ক কালিঙ্গা ট্যাটু অঙ্কনকারী হিসেবে ধরা হয়।

এই বৃদ্ধা ট্যাটু আঁকায় এখনো প্রাচীন রীতিটি ধরে রেখেছেন। তিনি বাঁশের একটি কঞ্চি, লেবু গাছের কাঁটা, কয়লা এবং পানির মাধ্যমে মানুষের শরীরে ট্যাটু ফুটিয়ে তোলেন। আগে এসব ট্যাটু শুধুমাত্র আদিবাসী বুটবুট যোদ্ধাদের গায়ে আঁকা হতো।

কিন্তু বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ অপো হুয়াংয়ের কাছে যান ট্যাটু আঁকতে।

অপো হুয়াং এখন বৃদ্ধ হয়ে যাওয়ায় নিজের দুই নাতিকে এই বিদ্যা শেখাচ্ছেন তিনি। যারা পরবর্তীতে তার এ কর্ম ধরে রাখবে। এই বৃদ্ধা জানিয়েছেন, যতদিন বেঁচে থাকবেন এবং চোখের দৃষ্টি ভালো থাকবে ততদিন এ কাজ চালিয়ে যাবেন তিনি।

সূত্র: সিএনএন



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...