1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  5. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  6. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মাদারীপুরে বাসের ধাক্কায় চলন্ত মোটরসাইকেলে আগুন, নিহত-১ দেশসেরা ক্যাডেট ইনসেন্টিভ এওয়ার্ড পেলেন কুবি বিএনসিসির সিইউও সাদী  বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন উপাচার্য অধ্যাপক ড. বদরুজ্জামান ভূঁইয়া  রমজানে কোনো পণ্যের দাম বাড়বে না: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদনগরে নব-নির্বাচিত দুই সংসদ সদস্যকে সংবর্ধনা মৃত্যুর পূর্বপর্যন্ত গরীবের পাসেই থাকবো: মুর্শিদ বাঘায় আম বাগান ও ফসলি জমিতে পুকুর খননের হিড়িক সক্রিয় আন্তঃজেলা অপরাধী চক্র, অতিষ্ঠ বলেশ্বর নদীর দুপারের মানুষ উজিরপুরে ডিবির হাতে ২ কেজি গাজা সহ ২ মাদক কারবারি গ্রেফতার বাহার ও রয়েল ডায়াগণষ্টিক সেন্টারকে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা




 হত্যার অভিযোগে লন্ডল প্রবাসী ব্যারিস্টার সহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২৩
  • ২০ বার পঠিত

জেমস আব্দুর রহিম রানা: চৌগাছার বহুলালোচিত মাকাপুর গ্রামের হায়দার আলীকে হত্যার অভিযোগে লন্ডল প্রবাসী ব্যারিস্টার ছেলেসহ ১০ জনকে আসামি করে আদালতে একটি মামলা হয়েছে। বুধবার মৃত হায়দার আলীর স্ত্রী লতিফা হায়দার বাদী হয়ে এ মামলা করেছেন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইমরান আহম্মেদ এ ঘটনায় চৌগাছা থানায় কোন মামলা হয়েছে কিনা, হলে অগ্রগতিসহ প্রতিবেদন আকারে আদালতে জমা দেয়ার আদেশ দিয়েছেন ওসিকে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাদীর আইজীবী কাজী সেলিম রেজা ময়না।

আসামিরা হলেন মহহুম হায়দার আলীর লন্ডন প্রবাসী ব্যারিস্টার ছেলে একেএম মর্তুজা রাসেল, ছুটিপুর বাসস্টান্ড এলাকার মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল ও তার ছেলে বিশাল, পুড়োপাড়া গ্রামের শাহিদা, তার ছেলে হাসিবুল, বাদে খানপুর গ্রামের রাজীব, হামিদা, ছেলে মাসুম, মজনু ও মাকাপুর গ্রামের শহিদুল।

মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, আসামি লন্ডল প্রবাসী ব্যরিস্টার মর্তুজা রাসেল ছেলে ও অপর আসামিরা আত্মীয়। হায়দার আলী পৈত্রিক ও ক্রয় সূত্রে সাড়ে ১৩ একর জমির মালিক ছিলেন। ওই জমি আসামি মর্তুজা রাসেল তার নামে রেজিস্ট্রি করে দেয়ার জন্য তার পিতার উপর মানসিক চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন। রাসেল প্রবাসী হওয়ায় আসামি মোস্তাফিজুর রহমানা বাবুলের মাধ্যমে জমি রেজিস্ট্রি করে দেয়ার জন্য চাপ অব্যাহত রাখেন। এ ঘটনায় ২০১৪ সালের ১৩ ডিসেম্বর চৌগাছা থানায় একটি জিডি করেন। চলতি বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি রাসেল বিদেশ থেকে দেশে আসেন। এরপর তিনি তার পিতাকে মায়ের হেফাজত থেকে নিজের জিম্মায় নেয়ার জন্য আদালতে মামলা করেন। আদালত আসামি মর্তুজাকে হেফাজতে দেন। এরপর আসামিরা মর্তুজার নামে জমি রেজিস্ট্রি করে দেয়ার জন্য চাপ দেন। জমি রেজিস্ট্রি করতে ব্যর্থ হয়ে আসামিরা হায়দার আলীকে বিষ প্রয়োগে মৃত্যু হয় এমন ওষুধ সেবন করিয়ে অসুস্থ করেন।

মামলায় আরও দাবি করা হয়েছে, হায়দার আলীকে চলতি বছরের ১ অক্টোবর যশোর ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি করে ৮ অক্টোবর রাতে ছাড়পত্র নিয়ে নেন আসামিরা। পরবর্তীতে মোস্তাফিজুর রহমান বাবুলের হেফাজতে মৃত্যু নিশ্চিত করে গভীর রাতে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় চৌগাছা থানায় লিখিত অভিযোগ দিলেও তা গ্রহণ করেনি থানা কর্তৃপক্ষ।

এরমাঝে আসামিরা তড়িঘড়ি ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ পরিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করেন। মরহুম হায়দার আলীর মৃত্যু সনদ ও অন্যান্য কাগজপত্র জোগাড় করে তিনি আদালতে এ মামলা করছেন। তাদের অভিযোগ আসামিদের অত্যাচারে তারা এখন নিজের বাড়িতেই উঠতে পারছেন না।



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...