1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. hmgkrnoor@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  5. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  6. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  7. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :




হত্যাকাণ্ডের ১৯ বছর পরে জানা গেল বাদীই সন্তানের হত্যাকারী

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: মঙ্গলবার, ১১ এপ্রিল, ২০২৩
  • ১৪৭ বার পঠিত

হত্যাকাণ্ডের ১৯ বছর পরে জানা গেল বাদীই ছিলেন সন্তানের হত্যাকারী। প্রতিবেশীকে ফাঁসাতে সন্তানকে হত্যার করে দুই স্ত্রীকে নিয়ে এমন নাটক সাজিয়েছিলেন। তবে হত্যকাণ্ডের ১৫ বছর পরে বাদী আকসেদ আলী সিকদার মারা গেলেও তার দুই স্ত্রীর দেওয়া আদালতে স্বীকারক্তিমূলক জবাববন্দিতে এসব তথ্য উঠে আসে। সন্তানকে (রেবেকা খাতুন) হত্যার দায়ে বাবা আকসেদ আলী সিকদার হলেন এখন আসামি।

মঙ্গলবার (১১ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) রাজশাহী অফিসে সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের এমন তথ্য দেন পিবিআই রাজশাহী জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আযাদ।

তিনি বলেন, প্রায় ১৯ বছর আগের মামলা এটি। ২০০৪ সালের ১০ জুন রাজশাহীর বাঘা উপজেলার লক্ষ্মীনগর এলাকায় ১৩ বছরের রেবেকা খাতুনকে হত্যা করা হয়। এই ঘটনায় জেলার বাঘা থানায় ২০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের বাবা আকসেদ আলী সিকদার। যদিও মামলার তদন্তের শেষ পর্যায়ে উঠে এসেছে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে আকসেদ আলী নিজেই ১৩ বছরের সন্তানকে হত্যা করেছিলেন। একই গ্রামের প্রতিপক্ষ মোল্লা বংশকে ফাঁসানোর উদ্দেশ্যে বাদী হত্যাকাণ্ড সংগঠিত করে এবং মোল্লা বংশের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বাদী আকসেদ আলী সিকদার পুলিশের কাছে স্বীকারক্তি দিয়েছিলেন- ঘটনার রাতে ১১টা থেকে সাড়ে ১১টার দিকে তিনি দুই স্ত্রী ভায়েলা খাতুন (৬৫) ও আফিয়া বেওয়ার (৬০) সঙ্গে বসে গল্প করছিলেন। একটা পর্যায়ে সে জানতে পারে কিছু দুষ্কৃতকারী আনুমানিক ৫০ জন তার বাড়ির দিকে এগিয়ে আসছে। এসময় স্ত্রীর পরামর্শে আকসেদ আলী বাড়ির কিছু দূরে একটা মাঠিয়ালে (ছোট পুকুর) গিয়ে লুকিয়ে পড়ে। দুুষ্কৃতকারীরা তার বাড়ি থেকে চলে গেলে কিছুক্ষণ পরে সে বাড়িতে ফিরে এসে দেখে তার স্ত্রীর হাত রক্তাক্ত আর ছুরির আঘাতে তার ১৩ বছরের রেবেকা খাতুনের পেটে থেকে নাড়িভুঁড়ি বের হয়ে গেছে। তাদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে রেবেকার মাথায় পানি দিতে থাকলে একপর্যায়ে ঘটনাস্থলে সে নিহত হয়।

পরে মেয়েকে হত্যার দায়ে একটি মামলা দায়ের করেন আকসেদ আলী সিকদার। এই মামলায় ২০ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ২০ থেকে ২৫ জনকে আসামি করেন তিনি। এই মামলাটি প্রথমে কয়েকদিন বাঘা থানা পুলিশ তদন্ত করে। পরে মামলাটি রাজশাহী জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ তদন্তের জন্য নেয়। তারা তদন্ত শেষে সেই বছরে চার্জশিট দেয় নাম উল্লেখ করে ২০ জনের বিরুদ্ধে। মামলাটির আদালতে ১৮ বছর বিচার কার্যক্রম চলছে। পরে আদলত মনে করেছে এই মামলটি আরও তদন্ত হওয়া দরকার। তাই ২০২২ সালের ১৬ মে রাজশাহী পিবিআইকে মামলাটি তদন্তের ভার দেন আদালত।

এরপরে পিবিআই তদন্ত শুরু করে। তবে তদন্তকালে পিবিআইয়ের কাছে একটা বড় প্রশ্ন ছিল। গ্রাম্য জায়গায় রাত সাড়ে ১১টা গভীর রাত। এসময় ৫০ জন লোক এসে একটা ১৩ বছরের মেয়েকে মেরে চলে গেল। আর বাড়ির টিনে মাত্র দুইটি কোপের চিহ্ন ছিল। এটা কতটা বাস্তব। এই প্রশ্নকে সামনে রেখে মামলাটির তদন্ত শুরু করে পিবিআই রাজশাহীর উপ-পরিদর্শক (এসআই) (নিঃ) খায়রুল ইসলাম।

তদন্ত করতে গিয়ে একটা পর্যায়ে বাদী আকসেদ আলী সিকদারের স্ত্রী ভায়েলা খাতুন ও নিহত রেবেকা খাতুনের মা আফিয়া বেওয়া আদলতে স্বীকার করে আসামিদের ফাঁসানোর জন্য তাদের স্বামী আকসেদ আলী সন্তানকে (রেবেকা) হত্যা করেছে। খুনের সময় বাধা দিতে গেলে তার দুই স্ত্রীর হাতের বিভিন্ন জায়গায় কোপ দেয়। মেরে ফেলার মূল কারণ ছিল প্রতিপক্ষকে ফাঁসানো। যদিও তাদের নিজদের মধ্যে জায়গা জমি নিয়ে দীর্ঘ দিনের মামলা চলমান রয়েছে।

পিবিআই রাজশাহী জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আযাদ বলেন, তারা আদালতের কাছে স্বেচ্ছায় স্বীকার করেছেন আকসেদ আলী তার মেয়েকে হত্যা করেছে। যদিও আসামি আকসেদ আলী মারা গেছেন। আসামির দুই স্ত্রী এখন এই মামলার সাক্ষী।



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...