উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে পানি বন্দী গোমতীবাসী - Nagorik Vabna
  1. info.nagorikvabna@gmail.com : Rifan Ahmed : Rifan Ahmed
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. holysiamsrabon@gmail.com : Holy Siam Srabon : Holy Siam Srabon
  4. mdmohaiminul77@gmail.com : Mohaiminul Islam : Mohaiminul Islam
  5. ranadbf@gmail.com : rana :
  6. rifanahmed83@gmail.com : Rifan Ahmed : Rifan Ahmed
  7. newsrobiraj@gmail.com : Robiul Islam : Robiul Islam
উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে পানি বন্দী গোমতীবাসী - Nagorik Vabna
রবিবার, ২৬ জুন ২০২২, ০২:১৬ অপরাহ্ন
ঘোষণা:
দেশব্যাপী প্রচার ও প্রসারের লক্ষে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা সিভি পাঠান info.nagorikvabna@gmail.com অথবা হটলাইন 09602111973-এ ফোন করুন।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে পানি বন্দী গোমতীবাসী

  • সর্বশেষ পরিমার্জন : বুধবার, ২২ জুন, ২০২২
  • ১৩ বার পড়া হয়েছে

সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার: গোমতী নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে কুমিল্লা আদর্শ সদর, বুড়িচং, দেবিদ্বার এবং মুরাদনগরের বেরীবাঁধ সংলগ্ন চরের সবুজ ফসলী মাঠে কৃষকের হাসি তলিয়ে গেছে পাহাড়ী ঘোলা জলের শ্রোতে। অর্ধডুবন্ত বাড়ি ঘরের লোকজন বাড়ি ছেড়ে বেরীবাঁধের উপরসহ বিভিন্ন নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন।

সম্প্রতি উজানে অতিবৃষ্টি এবং পাহাড়ী ঢলে পানির চাঁপে গোমতী নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে কুমিল্লা’র গোমতী নদীর তীরবর্তী উভয় পাশের বেরীবাঁধ সংলগ্ন চরের প্রায় সহস্রাধীক কৃষক পরিবারের স্বপ্ন কৃষি জমির আবাদী ফসল তলিয়েগেছে ও বেরীবাঁধের অভ্যন্তরের আবাসিক এলাকার শত শত বাড়ি ঘর, দোকান পাট, মসজিদ মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পানি উঠেছে। ভূক্তভোগী পরিবার গুলোর মধ্যে কারো কারো ঘর পানির শ্রোতে ভেসে গেছে। মঙ্গলবার সরেজমিনে কুমিল্লা জেলার গোমতী তীরবর্তী বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ওই দৃশ্য দেখা যায়।

দেবিদ্বার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আব্দুর রৌফ জানান, শুধু মাত্র গোমতী নদীর বেড়ীবাঁধের ভেতরে ৬৫ হেক্টর আউস, ১৫ হেক্টর শাকসব্জী, ২ হেক্টর আখ, ১ হেক্টর তিল, ১ হেক্টর মরিচ ও ২ হেক্টর মিষ্টি আলু অন্যান্য ফসলসহ প্রায় ৮৬ হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছে। যা পানিতে নিমজ্জিত অবস্থায় আছে। পানি দির্ঘস্থায়ি হলে ফসল ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে, ২/১ দিনের মধ্যে পানি কমে গেলে ক্ষতির পরিমান কম হবে।

বারেরার চর গ্রামের কৃষক বাবুল মিয়া জানান, আমি ৫০ শতাংশ জমিতে লাউ চাষ করেছি। পানিয়ে তলিয়ে যাওয়ায় বিরাট ক্ষতির সম্মূখীন হলাাম। আব্দুল আলিম জানান, ৪০ শতাংশ জমিতে শশা আবাদ করেছি। ব্যাপক ফলন হলেও পানি সব শেষ করে দিয়ে গেছে।

জাফরগঞ্জ ঋষি পল্লীর রাখাল জানান, তার মূল বসত ঘরটিতে ভাসিয়ে নিয়ে যায় এবং এ এলাকার শতাধিক ঋষি পরিবারের সমস্ত বাড়িঘর পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। গত রাত থেকে সবাই খোলা আকাশের নিচে বেড়ীবাঁধে আশ্রিত।

দেবিদ্বার উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ গোলাম মাওলা জানান, গোমতী বেড়ীবাঁধ এর অভ্যন্তরের আবাসিক এলাকার জাফরগঞ্জ ইউপির গংগানগর- ৪৭টি, রঘুরামপুর- ৩০৫টি এবং পৌর এলাকার বড়আলমপুর গ্রামের- ১৪২টি ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের তালিকা প্রনয়ন করা হয়েছে। এখনো পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরী হয়নি।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় পানিউন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ সেলিম মিয়া জানান, আজ (মঙ্গলবার) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কুমিল্লার অংশে গোমতী নদীর পানি কমলেও দেবিদ্বারের অংশে পানি বৃদ্ধি অব্যাত আছে। গত রাতে ঘন্টায় ৬ সেন্টি মিটার পানি বৃদ্ধি পেলেও আজ সন্ধ্যায় পানির উচ্চতা ৭.৭ সেঃমিঃ বেড়েছে। গড়ে প্রতি ঘন্টায় ২-৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ এলাকা ঝুকিপূর্ণ অবস্থানে নাকি ঝুকিমুক্ত তা নিশ্চিত করে বলতে পারছিনা।

দেবিদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আশিক-উন-নবী তালুকদার জানান, যে কোন দূর্যোগ মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুত রয়েছি। পাউবোর লোকজনসহ আমরা গোমতী নদীর পানি বৃদ্ধি ও ঝুকিপূর্ণ স্থানগুলো নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করে আসছি।




আরো সংবাদ পড়ুন







নাগরিক ভাবনা লাইব্রেরী

Sat Sun Mon Tue Wed Thu Fri
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930