1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  5. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  6. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:১১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
‘আমাকে বাবা ডাকবে কে?’ ৩ মেয়েকে হারানো ফিলিস্তিনি বাবার কান্না নিরাপদ ও পরিবেশবান্ধব শিল্পকারখানা গড়ে তুলতে হবে : রাষ্ট্রপতি এক সেঞ্চুরিতে প্রায় কোটি রুপির গাড়ি উপহার পেলেন বাবর হারিয়ে যাচ্ছে আবহমান বাঙালির গ্রামীণ ঐতিহ্য ঢেঁকি শিল্প দুর্নীতি করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না- মেয়র শেখ আ. রহমান মাদারীপুরে শিক্ষাসফরের বাসে শিক্ষার্থীদের সাথে মদ পানের ঘটনায় দুই শিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত পাকিস্তানে পার্লামেন্ট অধিবেশন আহ্বান, যা বলল পিটিআই এবার ঐশ্বরিয়াকন্যা আরাধ্যার স্বভাব নিয়ে মুখ খুললেন নব্যা পাকিস্তানে প্রেসিডেন্টের বিরোধিতা সত্ত্বেও পার্লামেন্ট অধিবেশন আহ্বান ফের বাড়ছে বিদ্যুতের দাম, ইউনিটপ্রতি সর্বোচ্চ ৭০ পয়সা




ভৈরবে ট্রেন দুর্ঘটনায় আহত শিশু রবিউলের এখনও মেলেনি সন্ধান

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: বুধবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৫২ বার পঠিত

সাইফুল্লাহ সাইফ : কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার দু’দিন পেরিয়ে গেলেও হাসপাতালে ভর্তি আহত শিশু রবিউলের (৮) সন্ধানে এখন পর্যন্ত কেউ আসেনি। তবে তার সুস্থতার জন‌্য সার্বক্ষণিক পাশে রয়েছেন ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ‌্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার ও নার্সরা।

বুধবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ দৈনিক নাগরিক ভাবনা কে বলেন, রবিউল এখন আগের চেয়ে অনেকটা সুস্থ। ট্রেন দুর্ঘটনার পর সোমবার (২৩ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে শিশুটিকে ভর্তি করা হয়। তারপর নিয়মিত পরিচর্যায় গত দুই দিনে সে অনেকটা ভালো আছে। তবে তার কথাবার্তায় কিছুটা অসঙ্গতি রয়েছে। দুর্ঘটনার পর সে অজ্ঞান ছিল। পরে জ্ঞান ফিরে একটু সুস্থ হলে, সে আমাদের জানিয়েছিল তার নাম রবিউল। কিন্তু ঠিকানা বলছে ভিন্ন ভিন্ন। একবার বলছে তার বাড়ি নরসিংদী, আরেকবার বলছে ঢাকার গুলিস্তানে। তবে আজ (২৫ অক্টোবর) সকালের দিকে সে জানিয়েছে, তার বাবার নাম সুমন আর তাদের বাড়ি বরিশাল। সে ট্রেনেই থাকে, এছাড়া তেমন কিছু বলতে পারছে না।

তিনি আরও বলেন, আমরা শিশুটির ব‌্যাপারে অন‌্য চিন্তাও করছি। হতে পারে মাথায় আঘাত পেয়ে স্মৃতিশক্তিতে সমস‌্যা হচ্ছে। আমরা তাকে আরও দু’দিন পর্যবেক্ষণ করবো। তারপর ব্রেন স্ক‌্যান করার জন‌্য ঢাকা পাঠাবো। তবে শরীরে বড় কোনো আঘাতের তেমন চিহ্ন পাওয়া যায়নি। কোনো কিছুতে চাপা পড়ে হয়তো তার এমন অবস্থা হয়ে থাকতে পারে।

জানা গেছে, শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তির পর ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ তার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে নিজের মোবাইল নম্বর (০১৭৬৬২৫৪৮৮২) ও শিশুটির ছবি দিয়ে তার অভিভাবকদেরকে যোগাযোগ করার অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনি লিখেছিলেন, ভৈরবে মর্মান্তিক ট্রেন দুর্ঘটনায় এই শিশুটি আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এখনো তার অভিভাবকদের খোঁজ পাওয়া যায়নি। যদি কেউ শিশুটি চিনে থাকেন অথবা তার অভিভাবকের পরিচয় জানেন তাহলে মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ভৈরব এর সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হলো। কিন্তু বুধবার (২৫ অক্টোবর) দুপুর পর্যন্ত তার সন্ধানে কেউ আসেনি।

এ ব‌্যাপারে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদিকুর রহমান সবুজ রাইজিংবিডিকে বলেন, ট্রেন দুর্ঘটনায় আহত শিশুর স্বজনদের খোঁজের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন জায়গায় খবর প্রকাশ হয়েছে। কিন্তু এরপরও শিশুটির স্বজনদের কোনো সন্ধান মেলেনি। শিশুটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। হাসপাতালের চিকিৎসকদের পাশাপাশি আমরাও তার পাশে আছি। তাকে শতভাগ সুস্থ করে পরিবারের কাছে পৌঁছে দিতে সার্বিক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তাছাড়া, যতদিন শিশুটির অভিভাবকের সন্ধান না পাওয়া যাবে, আমরা তার দেখাশোনা করবো।



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...