1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  5. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  6. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:০৩ অপরাহ্ন




বিএনপি বলেছিলো ‌‘সমাবেশ করে চলে যাবো’, কিন্তু ধ্বংসযজ্ঞ চালালো: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: সোমবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৮২ বার পঠিত

অনলাইন ডেস্ক: বিএনপি বলেছিলো ‘সমাবেশ করে চলে যাবো’ কিন্তু তারা ধ্বংসযজ্ঞ চালালো বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। রোববার (২৯ অক্টোবর) রাতে সংসদের অধিবেশনে তিনশ বিধিতে দাঁড়িয়ে বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এসময় ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকু সভাপতিত্ব করছিলেন।

আসাদুজ্জামান খান কামাল, বিএনপি বলেছিলো ‘সারাদেশের ১০ লাখ নেতাকর্মীকে নিয়ে একটি মহাসমাবেশ করবে’। আমরা তাদের বলেছিলাম তোমরা একটি মাঠে যাও। কিন্তু তারা বললেন ‘তাদের অফিসের সামনেই তাদের স্থান দিতে হবে’। তারা পরিষ্কার করে আমাদের জানিয়েছিলেন, ‘নাইটিঙ্গেল থেকে ফকিরাপুলের মধ্যেই তারা থাকবেন’। পাশাপাশি আমাদের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকও একটি শান্তি সমাবেশের অনুমতি চেয়েছিলো। আমাদের পুলিশ কমিশনার তাদেরও পারমিশন দিয়েছিলো।

তিনি বলেন, আমরা প্রথমেই দেখলাম তারা নাইটিঙ্গেল ছেড়ে ইচ্ছা করেই আইডিইবি ও জাজেস কমপ্লেক্সের সামনে অবস্থান নেয়। আমাদের যুবলীগ ও যুব মহিলা লীগের মেয়েরা যখন প্রধান বিচারপতির বাসভবনের সামনে দিয়ে আসছিলো তখনই আক্রমণ। তারা সেসময় সেখানে গাড়ি ভেঙেছে, গাড়িতে আগুন দিয়েছে। সে সময় পুলিশ সদস্যরা তাদের রক্ষা করে। এরপর এমন একটি ঘটনা ঘটালো যা কখনই আমরা দেখিনি। তারা প্রধান বিচারপতির বাসায় জোরপূর্বক ঢুকে পড়ে। তারা বলেছিলো ‘সমাবেশ করে চলে যাবো’, সেটি না করে তারা ধ্বংসযজ্ঞ চালালো।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা দেখলাম তারা বৃষ্টির মতো ঢিল ছুড়ছিলো। মনে হচ্ছিলো তারা পকেটে করে বা ব্যাগে করে ঢিল নিয়ে এসেছিলো। সেগুলো পুলিশের গায়ে মেরেছে। আমাদের দলীয় কর্মীরা কিন্তু সেখানে ছিলো না। ঢিলের আঘাতে একজন পুলিশ সদস্য যখন পড়ে গিয়েছিলো তখন দেখলাম ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা পুলিশের সদস্যকে পেটাচ্ছে। পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। সেখানে আহতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিলো। এমনকি সংবাদকর্মীদের উপরও তারা চড়াও হয়। সেখানে তারাও সেবা নিতে গিয়েছিলো। এমন সময় তারা সেখানে ঢুকে বড় দু’টি হামলা করলো। পুলিশের যারা সেবাদান করছিলো তাদের মারধর করেছে এবং পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করেছে। সামনে যা পেয়েছে ভাঙচুর চালিয়েছে। এ ধরনের হামলা সভ্য জগতে দেখা যায় না।

তিনি বলেন, গাজার হাসপাতালে ইসরায়েল এ ধরণের সামরিক অভিযান চালাচ্ছে। সেটি সারাবিশ্ব নিন্দা জানাচ্ছে। কিন্তু সে দৃশ্য আমরা এখানে দেখলাম। তারা হাসপাতালে আক্রমণ করলো। আমার মনে হয় এটি সংঘবদ্ধভাবে পরিকল্পনামাফিক তারা একটা অরাজক পরিস্থিতির জন্য এ ঘটনাগুলো ঘটিয়েছে। এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান পুলিশ কনস্টেবল আমিনুল ইসলাম পারভেজকে নৃশংসভাবে পেটানো হয়েছে। ঢিলের আঘাতে তিনি পড়ে যাওয়ার পর তাকে পেটানো হলো। তার মৃত্যু নিশ্চিত করার জন্য তাকে চাপাতি দিয়ে কোপানো হয়েছে। এ ধরনের বর্বরতা কোনো মানুষ সহ্য করবে না। আমাদের আরেকজন পুলিশ সদস্য মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। আমাদের ১১৫ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ঘটনা এখানেই শেষ নয়। তারাই পুলিশকে মারলো, সাংবাদিকদের মারলো, মহিলা লীগের নেত্রীদের গায়ে হাত তুললো। আবার তারাই হরতাল ডাকে। শুধু হরতাল ডেকেই খান্ত হননি, আজ সকালে ডেমরায় একটি বাসে আগুন দিয়ে ঘুমন্ত হেলপারকে পুড়িয়ে মেরেছে। এ ঘটনা মনে করিয়ে দেয় ২০১৫ সালে যেভাবে জ্বালাও-পোড়াও করেছিলো। বাসে অগ্নিসংযোগ করেছিলো, গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেছিলো, মানুষের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলো। সে ঘটনারই পুনরাবৃত্তি ঘটাচ্ছে।

তিনি বলেন, নীলফামারিতে হরতালের বিরুদ্ধে মিছিল করা আমাদের একজন কর্মী তাদের হামলায় নিহত হয়েছে। নৈরাজ্য তারা সারাদেশে ছড়িয়েছে। এ পর্যন্ত ২৬টি গাড়ি পুরোপুরি পুড়িয়েছে, আরো কয়েকটি গাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে পুলিশ চরম ধৈর্যের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা করছে।

 

n/v



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...