1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. hmgkrnoor@gmail.com : Golam Kibriya : Golam Kibriya
  5. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  6. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  7. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গুরুদাসপুরে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী মেলার উদ্বোধন মাদারগঞ্জে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ পালিত আদালতের নির্দেশ অমান্য করে সাঁথিয়ায় মাতৃগর্ভে থাকা শিশুর লিঙ্গ পরিচয় প্রকাশ গাজীপুরে গভীর রাতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড, ১০টি দোকানের ক্ষয়ক্ষতি হোমনায় প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনীব উদ্বোধন সোনাগাজীতে কবরস্থানের জন্য জমি দান করে,নজির গড়লেন হিন্দু পরিবার হরিপুরে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত মঠবাড়িয়ায় পৌর ছাত্রলীগের উদ্যোগে খাবার পানি ও স্যালাইন বিতরণ ইসরায়েলের সঙ্গে গুগলের চুক্তি, বিরোধিতা করায় চাকরি গেল ২৮ কর্মীর গাজা: বিমান হামলায় বেঁচে যাওয়া বালকের প্রাণ গেল সাহায্য নিতে গিয়ে




বইমেলায় প্রথম দিনেই বিক্রির শীর্ষে মিতালী বৈরাগী হাসি’র উপন্যাসগ্রন্থ ‍‍”ঝরে যায় শিউলিরা”

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: শুক্রবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ১৩২ বার পঠিত

জেমস আব্দুর রহিম রানা: অমর একুশে বইমেলা-২০২৪ এ প্রকাশিত তরুণ কবি ও শিশু সংগঠক মিতালী বৈরাগী হাসি’র উপন্যাসগ্রন্থ ‍‍”ঝরে যায় শিউলিরা” প্রথম দিনেই বিক্রির শীর্ষে স্থান পেয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল পাবলিকেশন হাউজের শতভাগ নিজস্ব অর্থায়নে গ্রন্থটি প্রকাশ করছে নব সাহিত্য প্রকাশনী। প্রচ্ছদ এঁকেছেন শিল্পী কাউসার মাহমুদ।

মিতালী বৈরাগী হাসি’র গ্রন্থটি নিয়ে বাংলাদেশ রাইটার্স ফোরামের সভাপতি কবি প্রত্যয় জসিম বলেন, “ঝরে যায় শিউলিরা” লেখা অসাধরণ একটি উপন্যাস। গ্রন্থটির নাম শুনেই বুকের পাঁজরে ঝড় বয়ে যায়। কবি তার গ্রন্থে স্পষ্ট করে বলছেন, শিউলিরা সবাই একদিন ঝরে যায়। এ সহজ বাক্যের ভেতর বাঙালির হাজার বছরের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের প্রতি অবিনাশী আকর্ষণ স্পষ্ট। বিশেষ দিবস ঈদ, পূজা, পালা-পার্বণে বাঙালি নারীর অনিবার্য আকর্ষণ বহুগুনে বাড়িয়ে দেয় শিউলি নামের গন্ধহীন ফুল। আধুনিকতা ও পরদেশি সংস্কৃতির তাণ্ডবে শিউলি ফুলের নিত্য ব্যবহার কমে গেলেও একেবারে হারিয়ে যায়নি।

কথাসাহিত্যিক ও বাসসের সিনিয়র সাংবাদিক তানভীর আলাদিন বলেন, তরুণ সাহিত্যিক মিতালী বৈরাগী হাসি রুচিজ্ঞানে চৌকস বলেই জানি। আশা করছি সাহিত্য ভূবনেও তিনি স্বকীয়তার ছাপ রাখতে সক্ষম হবেন। নতুন পরিচয়ের সফলতা তাকে ছুঁয়ে যাক।

গ্রন্থটির প্রকাশক ইন্টারন্যাশনাল পাবলিকেশন হাউজের স্বত্বাধিকারী মুহাম্মদ শামসুল হক বাবু বলেন, সাহিত্যিক মিতালী বৈরাগী হাসি একজন সাদা মনের মাটির মানুষ। অনেক দিন ধরেই সাহিত্য সংগঠন করেন, তিনি গোপালগঞ্জ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। লেখালেখি করেন দীর্ঘদিন ধরে কিন্তু তার বই প্রকাশ করতে পারেননি। আমার প্রকাশনী সংস্থা International Publishing House তার পাণ্ডুলিপি পড়ে দেখে সন্তুষ্ট হয়, করা হয় এবং বই আকারে ছাপাতে রাজি হয়। অবশেষে প্রকাশনীর শতভাগ অর্থায়নে (লেখকের টাকা ছাড়াই। বইটির ব্যয়ভার নিজের কাঁধে নিয়ে লেখকের হাতে তুলে দিতে কাজ গুরু করি। তারই ধারাবাহিকতায় “ঝরে যায় শিউলিরা” নামক উপন্যাসটি নিয়ে নব সাহিত্য প্রকাশনী সংস্থার সাথে চুক্তিবদ্ধে আবদ্ধ হই। সেই মোতাবেক বইটি প্রকাশের পর অমর একুশে বইমেলায় বিক্রি করা হচ্ছে। বইটি পাওয়া যাচ্ছে একুশে গ্রন্থমেলা ২০২৪ এর নব সাহিত্য প্রকাশনীর স্টলে। প্রথম দিনেই বইটির যে পরিমান পাঠক প্রিয়তা অর্জন করেছে তাতে আশা করি উপন্যাসটি ব্যাপক পাঠক প্রিয়তা পাবে। আমি লেখিকার এবং বইটির উত্তরোত্তর উন্নতি ও সফলতা কামনা করছি। প্রথম দিনেই বিক্রির শীর্ষে মিতালী বৈরাগী হাসি’র “ঝরে যায় শিউলীরা” উপন্যাসটি অমর একুশে বই মেলায় পাবেন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নব সাহিত্য প্রকাশনীর ৩৮৪-৩৮৫ নং স্টলে।

কবি মিতালী বৈরাগী হাসি ১৯৮০ সালের পহেলা অক্টোবর মধুমতির কোল ঘেষা গোপালগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মৃত্র অনিল চন্দ্র বৈরাগী, মাতা মৃত ময়না বৈরাগী। কবি তার ছয় ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট। এক ছেলে এক মেয়ের সফল জননী মিতালী বৈরাগী হাসি নিজের এবং চাতাতো বোনদের মধ্যে কবি একমাত্র অক্ষর জ্ঞান অর্জনকারী সংগ্রামী নারী সদস্যা। মাতাই তার একমাত্র অনুপ্রেরণাময়ী, পিতা মাতার অনুকরণ অনুসরণ-ই ব্যক্তিত্ব। ছোট বেলা থেকেই তিনি ছিলেন মেধাবী, বাধ্য, নম্ন স্বভাবের, গুরুজন ভক্ত। কে.এম.এম মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পাশ করেন। মানুষ গড়ার কারিগর হয়ে পার করছেন জীবন। ১৯৯৫ থেকে এখনো চলমান রয়েছে তার শিক্ষাদান কর্মসূচি। রচনা করেছেন ‘আমি বলছি’, ‘তাপদাহ’, ‘প্রতিদান’, ‘নিশ্চুম’, ফিরে এসো’, ‘তুমি আসবে বলে’, ‘ফাগুন এলো’, ‘বীরাঙ্গনা’, ‘মনের ক্যানভাসে লিখেছি তোমার নামটি’ ‘ফিকে স্বপ্নের মতো প্রায় ৩০০ টির ও বেশি গদ্য, পদ্য। ৫টি ছোট গল্প ৩টি উপন্যাস সংরক্ষিত আছে। তিনি বর্তমানে ঢাকায় শিক্ষকতা করছেন।



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...