1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  5. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  6. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৪৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য টগরকে নাগরিক সংবর্ধনা ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ৩৩টি গাঁজাগাছ সহ নারী গ্রেপ্তার শেখ হাসিনা আছেন বলেই দেশে শান্তি আছে, সমৃদ্ধি ঘটছে- মেয়র আ. খালেক যশোরের খেজুর গুড়ের জিআই স্বীকৃতি ও ইউএনও ইরুফা কালীগঞ্জে উপজেলা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা কমিটির মাসিক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়ায় রেস্তোরাঁর তিন কর্মচারীকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় গ্রেফতার-০৩ পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির তলবি সভা কেন্দ্র করে ৪ আইনজীবী আহত তেলবাহী লরির ধাক্কায় নিহত ২ হোমনায় স্থানীয়ভাবে উদ্ভাবিত লাগসই প্রযুক্তির প্রয়োগ শীর্ষক সেমিনার যশোরে মদ্যপ অবস্থায় গ্রেপ্তার পৌর কাউন্সিলর যুবলীগ থেকে বহিষ্কার




সিদ্দিক বাজারে বিস্ফোরণ: আরও ২টি লাশ উদ্ধার, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৯

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: বুধবার, ৮ মার্চ, ২০২৩
  • ২০০ বার পঠিত

সেবা ডেস্কঃ

রাজধানীর গুলিস্তানে বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত সেই ভবনটির মালিককে হেফাজতে নিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।  বুধবার (৮ মার্চ) বিকালে ডিএমপি ডিবির প্রধান হারুন অর রশীদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে, মঙ্গলবার রাতে ওই ভবনের ‘বাংলাদেশ স্যানিটারি’ দোকানের মালিক আবদুল মোতালেব মিন্টুকে হেফাজতে নেয় ডিবির লালবাগ বিভাগ। পরে ভবনের মালিক ওয়াহিদুর রহমানকে হেফাজতে নেয় ডিবি। এ ছাড়া, আরও কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়।

জানা গেছে, গুলিস্তানে বিস্ফোরণ হওয়া ভবনটির মালিক ছিলেন রেজাউর রহমান নামে এক ব্যক্তি। তিনি মারা যাওয়ার পর তার তিন ছেলে ওয়াহিদুর রহমান, মশিউর রহমান ও মতিউর রহমান ভবনটির মালিক হন।

এর মধ্যে বড় ভাই ওয়াহিদুর রহমান ও ছোটো ভাই মতিউর রহমান ভবনটি পরিচালনা করতেন। আর মেজো ভাই মশিউর রহমান দেশের বাহিরে লন্ডনে বসবাস করেন। এর মধ্যে ওয়াহিদুর রহমানকে হেফাজতে নিয়েছে ডিবি পুলিশ।

ডিএমপি ডিবির প্রধান হারুন অর রশীদ বলেন, বিস্ফোরণের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আমরা বাড়ির মালিক, দোকান মালিকদের ডেকেছি। বাণিজ্যিকের নিয়মমতো বেজমেন্টে দোকান দেওয়ার কথা না। এ ছাড়া, সুয়ারেজ লাইন, সেপটিক ট্যাংক, ওয়াটার রিজার্ভার-এগুলো নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ করা হতো কি না, এসব বিষয়ে আমরা তাদের কাছে জানতে চাইব।

তিনি বলেন, কার অবহেলায় এই হতাহতের ঘটনা ঘটল, তা জানতে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। এ ছাড়া, বাহির থেকে কেউ এটা ঘটিয়েছে কি না বা এমন সুযোগ আছে কি না, তা খতিয়ে দেখছি।

এর আগে, মঙ্গলবার বিকালে গুলিস্তানের সিদ্দিকবাজারের একটি ভবনে বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৯ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক।



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...