1. news.rifan@gmail.com : admin :
  2. smborhan.elite@gmail.com : Borhan Uddin : Borhan Uddin
  3. arroy2103777@gmail.com : Amrito Roy : Amrito Roy
  4. mdmohaiminul77@gmail.com : Md Mohaiminul : Md Mohaiminul
  5. ripon11vai@gmail.com : Ripon : Ripon
  6. holysiamsrabon@gmail.com : Siam Srabon : Siam Srabon
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখে : নসরুল হামিদ মানুষের হাতে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি টাকা রয়েছে: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী ৫ বছরে সরকারি চাকরি পেয়েছেন কতজন, জানালেন জনপ্রশাসনমন্ত্রী নির্দেশনা না মানলে কঠোর শাস্তির হুঁশিয়ারি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ‘বিএনপির আটক কর্মীদের মুক্তির সঙ্গে নির্বাচনের সম্পর্ক নেই’ বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম বৃদ্ধি সরকারের একটি অমানবিক খেলা: রিজভী একা একা লাগে মাহিয়া মাহির রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখবে সরকার: কাদের চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য টগরকে নাগরিক সংবর্ধনা ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে ৩৩টি গাঁজাগাছ সহ নারী গ্রেপ্তার




কাউখালীতে যৌতুক মামলায় ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা কারাগারে

  • সর্বশেষ পরিমার্জন: সোমবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ৮১ বার পঠিত
এনামুল হক, কাউখালী অফিসঃ
কাউখালীতে  স্ত্রীর করা যৌতুক মামলায় ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা মো. ইমরান হোসেন (৩৪)কে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। মামলা সূত্রে জানা যায়, ইমরান হোসেনের স্ত্রী মিয়াদ আক্তার বাদী হয়ে তার স্বামীর বিরুদ্ধে ২০২২ সালের ১৬ নভেম্বর ঝালকাঠি সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে যৌতুক মামলা দায়ের করেন। ইমরানের স্ত্রী মিয়াদ আক্তার রাজাপুর উপজেলার ইন্দ্রপাশা গ্রামের মো. মানিক হাওলাদারের মেয়ে। আজ সোমবার (২০ফেব্রুয়ার ) দুপুরে ঝালকাঠি সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মো. মনিরুজ্জামানের আদালতে  হাজির হয়ে ওই মামলায় সে জামিন চাইলে আদালত  নামঞ্জর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেন বাদী মামলার বাদী মিয়াদ আক্তার । মোঃ ইমরান হোসেন রাজাপুর উপজেলা সদরের মনোহরপুর গ্রামের মৃত এনায়েত হোসেনের ছেলে। ইমরান বর্তমানে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স- এ সহকারী পরিচালকের দপ্তর চট্টগ্রাম ওয়্যার হাউজে ইন্সপেক্টর পদে কর্মরত থাকলেও সংযুক্তিতে সে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
মামলার বাদী মিয়াদ আক্তার জানান, এর আগে মামলার  মীমাংসার শর্তে  আদালত থেকে জামিন পায় ইমরান। কিন্তু সে জামিন নিয়ে তার পরিচিত কিছু প্রভাবশালীদের দিয়ে আমাকে  বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করে। ইমরানের ঊর্ধ্বতনের দপ্তরেও একাধিবার অভিযোগ দিয়েও কোন প্রতিকার পাইনি। যৌতুক মামলায় আমি ন্যায় বিচার চাই। মামলায় হাজির হওয়ার আগে ইমরান হোসেন জানান মামলার বাদী আমার স্ত্রী মিয়াদ আক্তার সম্পর্কে আমার আপন খালাতো বোন। তার বিতর্কিত  কাজের জন্য আমার সাথে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়।  এ কারণে সে আমার সরকারি চাকরিতে ক্ষতিগ্রস্থ করার জন্য সম্পূর্ণ মিথ্যা একটি যৌতুকের মামলা দায়ের করেন। আমি আদালতের ন্যায়বিচার পাব।



সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

আরও খবর...