1. info.nagorikvabna@gmail.com : Rifan Ahmed : Rifan Ahmed
  2. emranhossain9555@gmail.com : Emran Hossain : Emran Hossain
  3. mdmohaiminul77@gmail.com : Mohaiminul Islam : Mohaiminul Islam
  4. ischowdhury90@gmail.com : Riazul Islam : Riazul Islam
বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন
ঘোষণা:
দেশব্যাপী প্রচার ও প্রসারের লক্ষে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহীরা সিভি পাঠান info.nagorikvabna@gmail.com অথবা হটলাইন 09602111973-এ ফোন করুন।

জমি বরাদ্দ পাইয়ে দেয়ার শর্তে অর্ধ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ

  • সর্বশেষ পরিমার্জন : শনিবার, ২১ নভেম্বর, ২০২০
  • ৫৩ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
গাজীপুর সদর উপজেলার মনিপুর,জয়নাতলী ও তালতলী এলাকার স্বল্প আয়ের শ্রমজীবি বেশকিছু লোককে সরকারী খাস জমি, বনের জমি বরাদ্দ পাইয়ে দেয়ার নিশ্চয়তা দিয়ে একটি শক্শিালাী প্রতারক চক্র অর্ধ কোটি টাকায় হাতিয়ে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে নানান পেশার নানান জনের মধ্যে কানাঘুষা চলছে। প্রতরক চক্র এতই শক্তিশালী ভূক্তভোগীরা এ এলাকার বাইরে থেকে কর্মের তাগিদে ভাড়াটে হিসাবে বসবাস করায় শারিরীক নির্যাতনের ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন বলে নাম না প্রকাশ করার শর্তে ভূক্তভোগীদের জনৈক ব্যক্তি দৈনিক নাগরিক ভাবনাকে লিখিত অভিযোগ করেছেন। ভক্তভোীদের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে অনুসদ্ধানমূলক তদন্তে সত্যতা মিললেও এ পর্যন্ত বিষয়টি কোন সুরাহা হয়নি বিধায় ক্ষতিগ্রস্তরা অর্থ শোকে দিশেহারা জীবন যাপন করছেন। গাজীপুরে মনিপুর তালতলী বাংলা বাজারে শতাধিক বৃহৎ ও মাঝারি শিল্প কারখানা গড়ে উঠায় উল্লেিেখত এলাকাকে শিল্পা ল বলেই দেশে সমধিক পরিচিত লাভ করেছে। ফলে দেশের প্রতিটি জেলার মহিলা পুরুষ এখানকার পোশাক শিল্পকারখানায় কর্ম রত আছেন। এ ছাড়া ঔষধ ফ্যাক্টরী, জুতার ফ্যাক্টরী, সিরামিক ফ্যাক্টরীতেও অসংখ্য বহিরাগত পুরুষ মহিলা শ্রমিক কর্মরত আছেন। এক বেসরকারী পরিসংখ্যানে জানা যায় বর্তমানে আমুমানিক দুই লক্ষাধিক শ্রমিক তাদের পরিবার পরিজনসহ বাসা ভাডা নিয়ে বসবাস করে তাদের কর্মে নিয়োজিত রয়েছেন। অনেকের ছেলে মেয়ে স্থানীয় স্কুল কলেজ মাদ্রাাসায় করছে। ফলে ভাড়াকৃত বাসায় বসবাস করে এসব শ্রমিকদের ছেলেমেয়েদের পড়াশুনার ব্যয়ভার বহন করা দুরুহ বিষয়। বাসা ভাড়ার দায় এড়াতে এ ধরনের সিন্ডিকেটের খপ্পরে পড়তে বাধ্য হয়েছে। এ এলাকায় প্রতি শতাংশ জমির নিম ্নমূল্য দুই লক্ষ টাকা এবং সর্বোচ্চ মূল্য দশ লক্ষ টাকা। ফলে দুই লক্ষ টাকায় যদি ১৫ শতাংশ সরকারী জমি পাওয়া যায়, তাহলে যে কোন ব্যক্তির জন্য এটা সহজসাধ্য ও লোভনীয় বিষয়। এ সুযোগটি কাজে লাগাতেই ভূক্তভোগীরা সরল বিশ্বাসে প্রতারক চক্রের প্রস্তাবে রাজি হয়েছেন বলে সচেতন মহল মনে করেন । দীর্ঘদিন ধরে এ সরকার বিরোধী কর্মকান্ড চলায় স্থানীয় বেশ কিছূু সংখ্যক গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ জানা সত্তেও কোন প্রকার কার্যকরি ব্যবস্থা গ্রহন না করায় বিষয়টি এখন ধামাচাপা পড়ার উপক্রম হয়েছে। একই সাথে ভূ ক্তভোগীদের দেয় অর্থ ফেরৎ পাওয়াটাও অনিশ্চয়তার মধ্যে হাবুডুবু খাচ্ছে। অবিলম্ব্ েসমস্যাটির আশু সমাধ্েনর জন্য আইন পয়োগকার ী সংস্থার হস্তেক্ষেপে স ুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রতারক চক্রদের আইনের আওতায় এনে বিচার নিশ্চিত করার জোর দাবি জানিয়েছেন ভূক্তভোগীদের পক্ষে এলাকার সচেতন নাগরিক সমাজ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

খুঁজুন

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৬০,৭১৯,৯৩৬
সুস্থ
৪২,০৩০,২৩৪
মৃত্যু
১,৪২৬,৮২৩